,

কুষ্টিয়ায় দুর্নীতি প্রতিরোধ সপ্তাহ পালন

এস.এম জামাল: দুর্নীতি হলে শেষ, নিজে বাঁচবো, বাঁচবে দেশ এ সেøাগানকে সামনে রেখে কুষ্টিয়ায় দুর্নীতি প্রতিরোধ সপ্তাহ পালন করা হয়েছে।

এ উপলক্ষে বুধবার সকালে কুষ্টিয়া ফায়ার সার্ভিসের সামনে মানববন্ধন শেষে বর্ণাঢ্য র‌্যালী শহর প্রদক্ষিন করে।

পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান।

এসময় তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে রাজনৈতিক মুক্তি অর্জিত হলেও এখনো পুরোপুরিভাবে অর্থনৈতিক মুক্তি আসেনি। দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান সংগ্রামে দেশের সর্বস্তরের মানুষকে সম্পৃক্ত হতে হবে। তিনি বলেন, প্রাচীনকালের ইতিহাসে দেখা গেছে কোন মানুষের ঘরের দরজা ছিলো না। সম্পদ পড়ে থাকতো কেউ চুরি ছিনতাই করতো না। অথচ বর্তমান সময়ে বিভিন্ন কায়দায় সংরক্ষন করেও রাখা সম্ভব হয় না। দুর্নীতি বর্তমানে দুরারোগ্য ব্যি তে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ক্যান্সার হলে তার মৃত্যু অবধারিত। কেমোথেরাপি নিয়ে দুইমাস বা ৬মাস বেঁচে থাকতে পারে কিন্তু টাকা পয়শা থাকা সত্বেও তাকে এইদুরারোগ্য ক্যান্সার থেকে মুক্ত হতে পারবে না। ঠিক এই দুরারোগ্য ক্যান্সারের মতো দুর্নীতি আমাদের সমাজের প্রতিটি রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করেছে। জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির মাধ্যমে প্রতিটি নাগরিক স্ব-স্ব স্থান হতে দুর্নীতি প্রতিরোধে ভূমিকা রাখবেন। সকলের সম্মিলিত চেষ্টায় মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের স্বপ্ন দুর্নীতিমুক্ত ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণ সম্ভব হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে আমাদের দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই তথ্য প্রযুক্তির কল্যানে দুর্নীতি অনেকটাই কমে আসছে বলেও অভিহিত করেন জেলা প্রশাসক। জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি রেজানুর রহমান খান চৌধুরী মুকুলের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা দুর্নীতি কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক মোঃ আব্দুল গাফফার। এসময় তিনি বলেন, বিশ্বের সভ্যতা থেকে বর্তমান পর্যন্ত কোন দেশ দুর্নীতিমুক্ত নয়। তবে দুর্নীতি সহনশীলতার জন্য বিভিন্ন দেশ কাজ করে থাকে। দুর্নীতিমুক্ত দেশ হলো ফিনল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড। তারপরেও তারা কিছুটা হলেও দুর্নীতি করে থাকে। তিনি বলেন, ২০০৫ সাল পর্যন্ত দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ান হয়েছিলে বাংলাদেশ। তবে ২০০৭সালে দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি গঠনের ফলে অনেকটাই দুর্নীতি কমে এসেছে।

সুষম বন্টন ব্যবস্থার কারনেও দুর্নীতি অন্যতম কারন উল্লেখ করে তিনি বলেন, নিজে ভালো কিছু পেতে চাই এবং বেশিবেশি নিতে চাই অথচ অন্যজনকে কম দিতে চাই। এসব থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারন সম্পাদক নাসিরা নাসরিন, সহসভাপতি এসএম কাদেরী শাকিল, সদস্য শাহীন সরকার,শফিকুল আলম বাচ্চু প্রমুখ। এরআগে দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য ও তরুণ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের দুর্নীতি বিরোধী শপথ পাঠ করান নাসিরা নাসরিন। পরে দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি জেলা শাখার সদস্যদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান জেলা প্রশাসক।

এসময় দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যসহ, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ সুধীজনরা উপস্থিত ছিলেন।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category