,

কুষ্টিয়ায় বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিনিধি : বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে “তরুণদের কন্ঠে কন্ঠ মিলাই” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কুষ্টিয়ায় “বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস-২০১৭” পালন করেছে। ৩ মার্চ “বাংলাদেশ জীববৈচিত্র সংরক্ষন ফেডারেশন (বিবিসিএফ) সরকারী কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর পাশাপাশি কুষ্টিয়া মানুষ মানুষের জন্য সংগঠন এই কর্মসূচী পালন করে। স্থানীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে দেশব্যাপী “বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস-২০১৭” পালন করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় মানুষ মানুষের জন্য’ কুষ্টিয়া, সংগঠনের শাহাবুদ্দিন মিলনের নেতৃত্বে থানাপাড়া ছয় রাস্তার মোড় থেকে শুরু করে সর্বত্র তারা বন্যপ্রাণী ও পাখিদের নিরাপদ আবাস্থল গড়তে নিরলসভাবে কাজ কওে যাচ্ছে। নিজ নিজ এলাকায় প্রকৃতিকে সংরক্ষণ করতে এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করতে সবাই নিজনিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি। এসময় সংগঠনের অন্যান্য সদস্য আরিফ আহাম্মেদ, সিরাজ খালাসি, রিয়াজ ডাব্লুসহ অনেকেই এগিয়ে এসেছে। মানুষ মানুষের জন্য সংগঠনের শাহাবুদ্দিন মিলন জানান, আমাদের দেশে বন উজাড় হয়ে যাওয়ায় পশু-পাখি কীট-পতঙ্গ টিকে থাকতে পারছে না। রাতে কোন বাড়ী বা ঝোপঝাড়ে, কিংবা গাছে পাখির চিৎকার চেঁচামেচি আদৌ সুখকর সংবাদ হতে পারে না। আবার বড় পাখিদের অত্যাচারে ছোট ছোট পাখিগুলো বাসা বেঁধে বাস করতে পারে না। চড়ুই,ঘুঘু, শালিক, ভড়ুই পাখি সহ ছোট ছোট পাখিরা বসবাস করতে না পেরে তারা প্রজনন ক্রিয়া সংঘটিত করতে না পেরে। খ্যশৈ খ্যশৈ বিলুপ্তির পথে এগিয়েছে। তাদের এই সমস্যা কিছুটা হলেও সমাধান কিংবা এই বিষয়ে জন সচেতনতা তৈরীর করতেই বিশেষ ভাবে নির্মিত মাটির কলস গাছে ঝুলিয়ে দিয়ে পাখির বাসযোগ্য ঘর স্থাপন করা হচ্ছিলো। কিন্তু ঝড়বৃষ্টিতে সেসব ভেঙ্গে যাওয়ার ফলে আমি নতুন উদ্ভাবন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাঁশের খাঁচা তৈরী করে পাখিদের বাসযোগ্য ঘর স্থাপনে কাজ করে যাচ্ছি। ইতিমধ্যে কুষ্টিয়া বনবিভাগ ও কাষ্টম অফিসের পাখিদের অভয়ারন্যতে বাঁশের খাঁচা স্থাপন করেছি।

 

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category