,

ছেলেকে মারতে দেখে মরে গেলেন বাবা

ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে চোখের সামনে ছেলে আরিফ হোসেনকে (২১) মারতে দেখে সইতে পারলেন না বাবা খোরশেদ আলম (৫০)।  হৃদরোগে তিনি চলে যান না ফেরার দেশে।

বুধবার (১ মার্চ) বিকেলে উপজেলার আঠারবাড়ী ইউনিয়নের তেলোয়ারী গ্রামের শ্রীফুলতলা এলাকায় তার এমন মর্মান্তিক মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানান, বিকেলে আঠারবাড়ী বাজারে সড়কের জায়গা নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক ও ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য (মেম্বার) শামছুল হক শামছু’র সঙ্গে বিরোধ হয় স্থানীয় খোরশেদ আলমের।

এ বিরোধের কয়েক ঘণ্টা পর খোরশেদের বাড়ির কাছে গিয়ে তার ছেলে আরিফকে মারধর করেন ইউপি সদস্য শামছু। এ দৃশ্য দেখে ঘটনাস্থলেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান খোরশেদ আলম। 

 আরিফের বড় ভাই আবদুল রাশিদ জানান, বাবা ছেলেকে মারপিটের ঘটনা সহ্য করতে পারেননি, তাই হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন। তবে আমরা আপোস-মীমাংসা করেছি।

স্থানীয় আঠারবাড়ী ফাঁড়ি পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) খন্দকার আল মামুন  বলেন, আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। শুনেছি মেম্বার খোরশেদের ছেলেকে মারপিট করেছেন। তবে খোরশেদের সঙ্গে মেম্বারের কোনো ঝামেলা হয়নি।

মেম্বার একটি হত্যা মামলায় বর্তমানে জামিনে রয়েছেন বলেও জানান এসআই। 

এ বিষয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম জানান, মৃত্যুর ঘটনাটি শুনেছি। তবে এ মৃত্যুর বিষয়ে নিহত ব্যক্তির পরিবার এখনও কোনো অভিযোগ করেনি।

মারপিটের বিষয়টি অস্বীকার করে শামছুল হক শামছু দাবি করেন, সড়কের জায়গা নিয়ে খোরশেদের ছেলে আরিফ বেয়াদবি করেছিল। তাই তাকে ধাক্কা দিয়েছি। এর বেশি কোনো ঘটনা ঘটেনি।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category