,

কাজী আরেফ আহমেদসহ পাঁচ জাসদ নেতা হত্যার ১৮তম বার্ষিকী আজ

ষ্টাফ রিপোর্টার: আজ বেদনা বিধুর ১৬ ফেব্রুয়ারি। এদেশের ইতিহাসের একটি কালো দিন। এই দিনে জাতীয় পতাকার রূপকার ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক জাসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কাজী আরেফ আহমেদসহ পাঁচ জাসদ নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।
দীর্ঘদিন পর হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ৩ ঘাতকের ফাঁসি কার্যকরা হওয়ায় নিহতের পরিবারের সদস্যরা তাতে স্বস্তি প্রকাশ করলেও তাদের দাবি এ হত্যাকান্ডের মুল পরিকল্পনাকারীরা আজও রয়েছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে।
একই সাথে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ঘাতকদের অনেকেই এখনও গ্রেপ্তার না হওয়ায় ক্ষোভ ও হতাশা দানা বেঁধেছে নিহতদের পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের মাঝে। সেই সাথে তারা শংকাও প্রকাশ করেছে।
হত্যাকান্ডের নির্মম শিকার এ্যাড. ইয়াকুব আলীর বড় ছেলে ইউসুফ আলী রুশো জানান, ৩ ঘাতকের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় আমাদের মাঝে কিছুটা স্বস্তি ফিরলেও এ হত্যাকান্ডের নেপথ্য মুল পরিকল্পনাকারীরা আজও রয়েছে ধরা ছোয়ার বাইরে।


এখনও গ্রেপ্তার হয়নি হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ঘাতকের অনেকেই। তাই এখনও উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা পিছু তাড়া করে, সেই সাথে মনের মাঝে সর্বদা বিরাজ করে শংকাও। ইতিহাসের নির্মম হত্যাযজ্ঞে জড়িত যারা এখনও গ্রেপ্তার হয়নি তাদের গ্রেপ্তার এবং এর পেছনের পরিকল্পনাকারীদের চিহ্নিত করে তাদের মুখোশ উন্মোচন করে আইনের আওতায় আনার জন্য সরকাররে কাছে দাবি জানান তিনি।
একই দাবি জানিয়েছেন সেদিনের ওই জনসভার সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন তৎকালীন স্থানীয় জাসদ নেতা হেলাল উদ্দিন। তিনিও হত্যাকান্ডের মুল পরিকল্পনাকারীদের চিহ্নিত করে তাদের জনসম্মুখে এনে বিচার করার দাবি জানান। এদিকে নির্মম ও ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকান্ড সংঘঠিত হওয়ার ১৮ বছর পার হতে চললেও আজও কালিদাসপুর ট্রাজেডি স্থলে শহীদদের স্মরনে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাগন ও এলাকাবাসী।
উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের কালিদাসপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সন্ত্রাস বিরোধী এক জনসভায় মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক জাসদ সভাপতি কাজী আরেফ আহমেদ, জেলা জাসদের সভাপতি লোকমান হোসেন, সাধারন সম্পাদক এ্যাড. ইয়াকুব আলী, স্থানীয় জাসদ নেতা ইসরাইল হোসেন ও শমসের মন্ডল সন্ত্রাসীদের গুলিতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। হত্যাকান্ডের ঘটনায় সে সময় দেশজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় ও আলোড়ন সৃষ্টি হয়। ঘটনার দিনই পুলিশ বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলাটি পরদিন সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়।
দীর্ঘ তদন্ত শেষে চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডের সাড়ে পাঁচ বছর পর ২০০৪ সালের ৩০ আগষ্ট কুষ্টিয়ার জেলা ও দায়রা জজ আদালত ১০ আসামীর ফাঁসি ও ১২ আসামীর যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়। রায়ের বিরুদ্ধে আসামীপক্ষ আপিল করলে ২০০৮ সালের ৫ আগষ্ট হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ নিম্ন আদালতের মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত ১০ আসামীর মধ্যে ৯ জনের ফাঁসির আদেশ বহাল রাখেন।
একই সাথে যাবজ্জীবন কারাদন্ডপ্রাপ্ত ১২ আসামীর সাজা মওকুফ করেন হাইকোর্ট। এরপর হাইকোর্টের ওই রায়ের বিরুদ্ধে ফাঁসির তিন আসামী রাশেদুল ইসলাম ঝন্টু, আনোয়ার হোসেন ও সাফায়েত হোসেন হাবিব ওরফে হাবি সুপ্রিম কোর্টে আপিল করে। ২০১১ সালের ৭ আগস্ট প্রধান বিচারপতির বেঞ্চে শুনানি শেষে আপিলকারী ফাঁসির ৯ জনের সাজা বহাল রাখেন।
পরে ফাঁসির দন্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামীরা সুপ্রিমকোর্টে রিভিউ করলে তাও ২০১৪-এর ১৯ নভেম্বর খারিজ করে দেন আদালত। এরপর গত ৭ জানুয়ারী গভীর রাতে যশোর কারাগারে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত তিন আসামী আনোয়ার হোসেন, রাশেদুল ইসলাম ঝন্টু ও সাফায়েত হোসেন হাবিব ওরফে হাবির ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category