,

ভ্যালেন্টাইনস ডে নিয়ে এক ঝুড়ি তথ্য

আশাফুল ইসলাম সেতু: ভালবাসা দিবসকে ঘিরে আছে নানান রহস্য, আছে অদ্ভুত সব রটনা। তরুণ-তরুণীরা বিভিন্নভাবে পালন করেন দিনটি। আসুন জেনে নেই আপনার প্রিয় এই দিনটি সম্পর্কে অদ্ভুতুড়ে কিছু তথ্য।

১. শেক্সপিয়ারের রোমিও-জুলিয়েটের কথা জানেন না এমন কোন মানুষ নিশ্চয়ই নেই! জুলিয়েট লাখো কিশোর-তরূণ প্রেমিক হৃদয়ের কল্পনার অপ্সরী। শুধু কল্পনা করেই ক্ষান্ত থাকেন না তারা। প্রতি ভ্যালেন্টাইনস ডে তে ইতালির ভেরোনা শহরে জুলিয়েটের ঠিকানায় যায় হাজারেরও অধিক চিঠি।

২. প্রতি বছর ভ্যালেন্টাইনস ডে তে দুই লাখ ২০ হাজারেরও বেশি বিয়ের প্রস্তাব দেয়া হয়।

৩. সারা পৃথিবীতে যত ভ্যালেন্টাইনস ডেতে গিফট বিক্রি হয় তাঁর ৮৫ ভাগ কেনে মেয়েরাই!

৪. ১৮৯ মিলিয়ন গোলাপের তোড়া বিক্রি হয় প্রতি বছর এই দিনে।

৫. সবচেয়ে বেশি ভ্যালেন্টাইনস ডের উপহার পান শিক্ষকরা। কারণ তারা একইসাথে ছাত্রছাত্রী, তাদের অভিভাবক, বন্ধুবান্ধব, সহকর্মী এবং প্রিয়জনের কাছ থেকে শুভেচ্ছা বার্তা পান।

৬. ১৫% আমেরিকান নারীরা নিজেরাই নিজেদের ভ্যালেন্টাইনস ডের কার্ড পাঠান।

৭. লাল গোলাপ ভালোবাসা, বিশ্বাস, প্রেমের প্রতীক। প্রিয়জনকে একটা লাল গোলাপ দিতেই হবে ভ্যালেন্টাইনস ডেতে। লাল গোলাপের এই জনপ্রিয়তার উৎস রোমান পুরাণ। রোমান প্রেমের দেবী ভেনাসের প্রিয় ফুল এটি।

৮. ভালোবাসা দিবসে শুধু আমেরিকাতেই ১ বিলিয়ন ডলারের বেশি চকলেট বিক্রি হয়।

৯. ১৫৩৭ সালে ইংল্যান্ডের রাজা সপ্তম হেনরি প্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে ভ্যালেন্টাইনস ডে হিসেবে ঘোষণা করেন।

১০. ৩৫ মিলিয়নেরও বেশি হৃদয় আকৃতির চকলেট বক্স বিক্রি হবে এই বছর ভালোবাসার মানুষকে উপহার দেয়ার জন্য।

১১. লাল গোলাপের ক্রেতাদের মধ্যে ছেলেরাই এগিয়ে। ৭৩% গোলাপ ক্রেতা ছেলেরা, যেখানে মাত্র ২৭ শতাংশ মেয়েরা গোলাপকে বেছে নেয় উপহার হিসেবে।

১২. ফিনল্যান্ডে ১৪ ফেব্রুয়ারি বন্ধুরা সবাই মিলে উৎযাপন করে। তাদের কাছে ভ্যালেন্টাইনস ডে মানে বন্ধুত্ব দিবস। কোন বিশেষ একজনের বদলে বন্ধুদের সবার সাথে দিনটি পালন করে তারা।

১৩. মধ্যযুগে ‘X’ বর্ণটিকে মনে করা হত চুম্বনের প্রতিশব্দ। যারা প্রিয়জনকে লেখা চিঠিতে নিজের নাম লিখতে চাইতেন না তারা এই বর্ণটি নামের বদলে ব্যবহার করতেন।

১৪. মধ্যযুগের আরেক অদ্ভুত নিয়ম ছিল। তখন তরুণতরুণীরা নিজেদের ভ্যালেন্টাইন কে হতে পারে জানার জন্য বড় একটি পাত্র থেকে যে কোন একটি নাম নির্বাচন করত। নিয়ম ছিল, ১ সপ্তাহ পর্যন্ত সেই নাম জামার আস্তিনে বা হাতায় লিখে পরে থাকতে হবে!

১৫. এক সময় মেয়েরা এই দিনে অদ্ভুৎ সব খাবার যেমন সস/কেচাপ দিয়ে প্যানকেক খেত যাতে রাতে স্বপ্নে তারা তাদের ভ্যালেন্টাইনকে দেখতে পায়।

১৬. ভিক্টোরিয়ান সময়ে ভ্যালেন্টাইনস ডেতে কার্ড স্বাক্ষর করাকে অশুভ মনে করা হত!

১৭. পশ্চিমা বিশ্বে যেসব তরুণ-তরুণীর প্রেমিক/প্রেমিকা নেই তারা SAD অর্থাৎ Singles Awareness Day পালন করেন!

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category