,

মাজিহাট ক্যাম্পর এএসআই লিটনের কান্ড

মিরপুর প্রতিনিধিঃ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার মাজিহাট ক্যাম্পের এ এসআই লিটনের বিরুদ্ধে দুই জন নাবালিকা প্রেমিক প্রেমিকাকে আটক করে ৩৫ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা যায়, শুক্রবার আমবাড়ীয়া ইউনিয়নের ছানোয়ারের মেয়ে রিনা (১৪) সাথে কুর্শা ইউপির মাজিহাট গ্রামের শামিম (১৮) এর ভালোবাসার সূত্র ধরে শামিমের বাড়ীতে এসে তাকে বিয়ে করার জন্য চাপ দিতে থাকে। তাদের দুজনের বয়স পূর্ণ না হওয়ায় উভয় পরিবার তাদের বিবাহ দিতে পারে না এই জন্য মাজিহাট গ্রামে ছেলের বাড়ীতে মেয়ের উপস্থিতিতে একটা জটলা পাকে। এ সময় স্থানীয় কিছু অতি উৎসাহী মানুষ ও একজন ইউপি সদস্য মাজিহাট ক্যাম্পের এএসআই লিটনকে বলে ছেলে মেয়ে ও তাদের পিতাকে আটক করে ক্যাম্প হয়ে থানায় নিয়ে যায়, এবং এরপর থেকে শামিমের পিতা ও চাচাকে বলা হয় ৫০ হাজার টাকা দিলে তাদের ছেড়ে দেওয়া হবে । হতদরিদ্র কৃষক পরিবার বিভিন্ন জনের কাছ থেকে ধার নিয়ে ২৪ হাজার টাকা মাজিহাট ক্যাম্পের এএসআই  লিটনকে থানায় গিয়ে দিলেও তিনি শামিম ও প্রেমিকা রিনা শামিমের পিতা কে ছাড়ে না। পরে মাজিহাট বাজারের বিকাশের দোকানদার ময়েন এর বিকাশ একাউন্ট থেকে ১০ হাজার টাকা বিকাশ করলে দুর্নীতি পরায়ন এ এস আই লিটন ঐ তিন জনকে থানা থেকে ছেড়ে দেয়।  এই ঘুষের টাকা নিয়ে  মাজিহাট বাজারে চরম সমালচনা হচ্ছে জনগণের সেবক পুলিশকে নিয়ে। একজন হতদরিদ্র কৃষক পরিবারকে কৌশলে থানায় নিয়ে মিমাংসা করার নাম করে প্রায় ৩৫ হাজার টাকা আদায় করা একটি জঘৃন্যতম কাজ করেছে মাজিহাট ক্যাম্পের  এ এস আই লিটন। বিষয়টি কুষ্টিয়া পুলিশ সুপারের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন মাজিহাট ও হালসার সাধারন মানুষ। জানা যায়, কয়েক মাস পূর্বে আমবাড়ীয়া গ্রামের কয়েকজন প্রভাবশালী এই শামিমকে আটকে তার পিতার নিকট হতে প্রায় ৪০ হাজার টাকা আদায় করেছে। দরিদ্র কৃষক পরিবারের কাছ থেকে বার বার সুকৌশলে টাকা নেওয়ার জন্য পরিবারটি পথে বসেছে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category