,

মৃত্যুর কাছে হেরে গেলেন লাইলী!

কুমারখালি প্রতিনিধিঃ মৃত্যুর কাছে অবশেষে হেরে গেলেন লাইলী। আগুনে পোড়া শরীর নিয়ে একটানা ১৫ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে সোমবার ভোরে সে হার মেনে না ফেরার দেশে পাড়ি দিয়েছে।
গত ২১ জানুয়ারী লাইলীর স্বামী কুমারখালীর কয়া ইউনিয়নের কয়া গ্রামের পাখি-ভ্যানচালক অমিত হোসেন যৌতুকের দাবীতে লাইলীর গায়ে আগুন দিয়ে ঘর বন্ধ করে রাখে। সেখান থেকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কুমারখালী হাসপাতালে ভর্তি করে। এক দিন পর কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল ও দুই দিন পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঢাকা মেডিকেলে থাকতে গিয়ে টাকা ফুরিয়ে যায়। ওষুধ ও ইনজেকশন কিনতে না পেরে ৩০ জানুয়ারি বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে আসেন তাঁকে। তারপর ০১ ফেব্রুয়ারী লাইলির বাবার বাড়ীতে লাইলিকে দেখতে যান কুমারখালী নির্বাহী কর্মকর্তা শাহেলা আক্তার। তার পরামর্শে কুমারখালী থানায় সেদিন রাতে মামলা করে তার পিতা রবিউল ইসলাম।
তারপরে বৃহস্পতিবার বিকেলে লাইলির অবস্থা খুব খারাপ হলে তাকে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার ভোরে মারা যান তিনি।
কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউর রহমান জানান, যৌতুক ও নারী নির্যাতনের অভিযোগে মামলা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তাদের ধরতে অভিযান অব্যহত রয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category