,

মধুমেলায় অশ্লীলতার প্রস্তুতি!

যশোর প্রতিনিধি: সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে যশোরের কেশবপুরের সাগরদাঁড়িতে মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আগামী ২১ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলা। লাখো মানুষের প্রাণের উচ্ছ্বাসের এ মেলা চলবে ২৭ জানুয়ারি পর্যন্ত।

মেলায় অশ্লীল কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করা হলেও অশ্লীল নৃত্য, জুয়া, ম্যাজিক শোর আয়োজনের প্রস্তুতির কাজ চলছে জোরকদমে। ফলে মধুপ্রেমীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ বিরাজ করছে।

কেশবপুর উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, মধুমেলা-২০১৭ এর মাঠ ইজারা সংক্রান্ত সিডিউল ফরমের ৩ ও ৬ নম্বর শর্ত অনুযায়ী- মেলাতে কোন কুরুচিপূর্ণ নৃত্য, অশ্লীলতা, পুতুল নাচ, জুয়া, লটারি, হাউজি, ম্যাজিক শোর আয়োজন বা প্রদর্শণ করা যাবে না। তবে উন্মুক্ত মঞ্চে বিনা টিকিটে যাত্রাপালার আয়োজন করতে পারবে। এসব শর্ত মেনে প্রায় ২৫ লাখ টাকায় মেলার মাঠ ইজারা নিয়েছেন আনোয়ার হোসেন বিপুল নামে একজন। একই সাথে শর্তে মেলার মাঠ সাব-ইজারা দেয়ার নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

এ শর্ত উপেক্ষা করে ইজারাদার স্থানীয় কিছু চি‎হ্নিত লোকদের কাছে মাঠ সাব ইজারা দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এরা পুতুল নাচের নামে অশ্লীল নৃত্যের জন্য ১৬টি ঘেরা প্যান্ডেল তৈরি করছেন। প্রতি বছর রাত ১১টার পর থেকে এসব প্যান্ডেলে পুতুল নাচের নামে অশ্লীল নৃত্য হয়। স্কুলের শিক্ষার্থী ও যুবরা এ পুতুল নাচ দেখে থাকে। এতে অভিভাবকরা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েন। ইতোমধ্যে ২৫/৩০ পুতুল নাচের নারীকর্মীর আগমন ঘটেছে এ মেলায়। এরা প্রতিবছরই মেলায় এসে থাকে। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি।

এছাড়া মেলায় জুয়া, লটারি, হাউজি খেলার লোকজন এসে ভিড় জমাচ্ছেন স্টল বরাদ্দ নেয়ার জন্য। স্থানীয় বাসিন্দারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে মেলায় এসব অসামাজিক কার্যক্রম বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।মধুমেলা উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ রায়হান কবির বলেন, মেলায় অপসংস্কৃতি বন্ধে সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category