,

কুয়াকাটায় নৌভ্রমণ বন্ধ

কলাপাড়া প্রতিনিধি: নিরাপত্তার স্বার্থে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় ট্যুরিস্ট বোটসহ স্পিড বোট চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশ।

শনিবার সকাল থেকে ফাতড়ার বনাঞ্চলসহ বিভিন্ন রুটে নৌপথে ট্যুরিস্ট বোটসহ স্পিড বোট চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়।

এদিকে ২২টি বোটের মালিকদের সংগঠন ট্যুরিস্ট বোট অ্যাসাসিয়েশনের সদস্য ও ১১টি স্পিডবোটের মালিক চালকসহ এর সঙ্গে জড়িত শ্রমিকরা বিপাকে পড়েছেন।

ট্যুরিস্ট বোট মালিক সমিতির নেতা জনি আলমগীর জানান, কুয়াকাটায় আসা পর্যটকের বিনোদনের জন্য তারা ফাইবার বোটের মাধ্যমে এক যুগেরও বেশি সময়কাল ফাতড়ার বনাঞ্চলসহ বিভিন্ন মনোরম স্পটে নৌ-পথে যাওয়া-আসার সুযোগ করে দেন। পর্যটকের সহনশীল একটি ভাড়া নির্ধারণ করে দীর্ঘকাল এই ব্যবসা করে অন্তত অর্ধশত পরিবারের জীবন-জীবিকার সুযোগ করে দিয়েছেন। অপরদিকে পর্যটকের বিনোদন দেয়ায় কুয়াকাটা পরিচিতিও ব্যাপকভাবে সমাদৃত করেছেন। এক কথায় পর্যটন শিল্পের সম্প্রসারে তারা সংগঠিত হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। এজন্য তারা ফাতড়ার বনাঞ্চল এলাকায় একটি বোটে ট্রিপ নিয়ে গেলে বনবিভাগকে বোট প্রতি এক শ’ টাকা এবং ট্যুরিস্ট প্রতি প্রত্যেকবারে ১১ টাকা পঞ্চাশ পয়সা রাজস্ব দিয়ে আসছেন।

আলমগীর জানান, শুক্রবার এক রশিদে তারা দুই হাজার তিন শ’ টাকার রাজস্ব দিয়েছেন। প্রত্যেকটি বোটে আয়তন ও ধারণ ক্ষমতা অনুসারে ২০ থেকে সর্বোচ্চ ৪০ জন যাত্রী বহন করে আসছিলেন। এমনকি গত ১৫ জানুয়ারি এই বোট রিজার্ভ করে মেগাবিচ কার্নিভাল কুয়াকাটা ২০১৭ এর ভিআইপি দর্শনার্থীরা ফাতড়ার বনাঞ্চল ঘুরে আসেন। এছাড়া বিচ সংলগ্ন সাগরে একটু বিনোদনের জন্য স্পিডবোটে ভ্রমণও শনিবার থেকে বন্ধ হয়ে গেছে। প্রত্যেক যাত্রীকে নিরাপদে ভ্রমণের জন্য এসব নৌ-যানে লাইফ জ্যাকেট ও প্রয়োজনীয় বয়া রয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করে কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশের এএসপি মীর ফসিউর রহমান সকাল থেকে কুয়াকাটা সৈকত সংলগ্ন সাগর থেকে নৌপথে পর্যটকদের ভ্রমণে ব্যবহৃত সকল বোট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন।

এ ঘটনায় বোট মালিকসহ চালকরা প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ মনোভাব পোষণ করে বোট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশের এএসপি মীর মো. ফসিউর রহমান জানান, এসব বোটে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছে। এদের সাগরে ভ্রমণের মতো ফিটনেস নেই। পর্যটকবাহী নৌযান ডুবে ভয়াবহ দুর্ঘটনা এড়াতে এসব যানে নৌ-বিহার বন্ধ করা হয়েছে। পর্যটকের স্বার্থেই এমন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

কুয়াকাটা বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি ও কলাপাড়ার ইউএনও এবিএম সাদিকুর রহমান জানান, এসব নৌযানে সাগরে ভ্রমণ পর্যটকের জন্য অনিরাপদ। এছাড়া সৈকত এরিয়ায় পর্যটকের গোসল করার স্পটে বোট চলাচলে বিপদ ঘটার শঙ্কাই বেশি। তাই এমন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category