,

কুষ্টিয়ায় বিদেশগামী কর্মীদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন

এস এম জামাল : কুষ্টিয়ায় চালু হয়েছে বিদেশগামী কর্মীদের জন্য আঙুলের ছাপ (ফিঙ্গার প্রিন্ট) কার্যক্রম। ঢাকার বাইরে বৃহত্তর কুষ্টিয়ার মানুষের জন্য এ কার্যক্রমকে সম্প্রসারিত করা হলো। কুষ্টিয়া, মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গা জেলাগুলোর বিপুলসংখ্যক বিদেশগামী কর্মীর আঙুলের ছাপ দেওয়ার সুবিধার্থে জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি) এই প্রযুক্তিসেবা চালু করেছে।

শনিবার সকালে জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অধিদপ্তরের কার্যালয়ে এর শুভ উদ্বোধন ঘোষনা করেন জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান।

এসময় তিনি বলেন, জাল ও ভুয়া পাসপোর্টের মাধ্যমে দেশের বাইরে গিয়ে বিদেশগামী কর্মীদের যাতে কোনো ধরনের হয়রানির শিকার হতে না হয়, তার জন্য এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এতে করে আঙুলের ছাপের মাধ্যমে প্রকৃত পাসপোর্টধারী ব্যক্তিকে সহজে শনাক্ত করা সম্ভব বলেও জানান তিনি। জেলা প্রশাসক আরও বলেন, এর মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সরকারের রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়ন আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল। একই সঙ্গে বৃহত্তর কুষ্টিয়াবাসীর দীর্ঘদিনের একটি দাবি মেটানো সম্ভব হয়েছে। কারণ বৃহত্তর এ জেলা থেকে বিপুলসংখ্যক কর্মী বিদেশে পাড়ি জমিয়ে থাকেন। অথচ এর আগে আঙুলের ছাপ দেওয়ার জন্য তাঁদের ঢাকায় ছুটে যেতে হতো। এতে তাঁদের অর্থ ও সময়ের অপচয় হতো। এখন এসব ভোগান্তি থেকে তাঁরা রেহাই পাচ্ছেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কর্মসংস্থান ও জনশক্তি প্রশিক্ষণ ব্যুরোর পরিচালক (বহির্গমন ও প্রটৌকল) এ,কে,এম টিপু সুলতান বলেন, বিদেশগামী কর্মীদের জন্য আঙুলের ছাপ (ফিঙ্গার প্রিন্ট) কার্যক্রম চালু হয়েছে এই কুষ্টিয়ায়। এর ফলে এই বৃহত্তর জেলার বিদেশগামীরা সহজেই এখান থেকে আঙ্গুলের চাপ দিতে পারবেন। এখানে শুধুমাত্র ২শ টাকা ফি প্রদান করতে হবে। জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অধিদপ্তরের কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক দেবব্রত ঘোষের সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কুষ্টিয়া কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের অধ্যক্ষ মোঃ আখতারুজ্জামান ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( সার্বিক) মুজিব উল ফেরদৌস। জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অধিদপ্তরেরর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক দেবব্রত ঘোষ জানান, বিদেশে কাজ করতে আগ্রহী কর্মীদের প্রথমে জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি কার্যালয়ে নাম নিবন্ধন করতে হয়। এরপর তাঁরা যখন ভিসা হাতে পান তখন তাঁদেরকে বিএমইটি থেকে বহির্গমন ছাড়পত্র (স্মার্ট কার্ড) নিতে হয়। আর এই ছাড়পত্র নেওয়ার জন্য আঙুলের ছাপ দিতে হয়। এর জন্য কোনো ফি দিতে হয় না। তবে আঙুলের ছাপ দেওয়ার সময় ভিসা ও চুক্তিপত্রের কপি, পাসপোর্টের কপি এবং চাকরিপ্রার্থীর নিবন্ধন কার্ড দেখাতে হবে। পরিষ্কার হাতে আঙুলের ছাপ দিতে হবে। কুষ্টিয়া,মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গা জেলার বাসিন্দারা বিদেশ যেতে হলে ফিঙ্গার প্রিন্টের জন্য ঢাকাতে যাওয়া লাগে। আজকের এই কার্যক্রমের মাধ্যমে এখন থেকে আর ঢাকায় যেতে হবে না। এসময় জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অধিদপ্তরের কার্যালয়ের কর্মকর্তা,কর্মচারীসহ বিদেশগামী নারী পুরুষরা উপস্থিত ছিলেন। পরে আঙুলের ছাপ দিয়ে (ফিঙ্গার প্রিন্ট) কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন অতিথিবৃন্দ।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category