,

রাজধানীসহ বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ৩টা ৯ মিনিটের দিকে এ কম্পন অনুভূত হয়। কম্পন স্থায়ী ছিল প্রায় ১০ সেকেন্ড।

ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ত্রিপুরার আমবাসা থেকে ১৯ কিলোমিটার উত্তরপূর্বে ভূপৃষ্ঠের ৩৬ দশমিক ২ কিলোমিটার গভীরে। রিখটার স্কেলেে এর মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৫।

ত্রিপুরা বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী হওয়ায় কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হবিগঞ্জ, ফেনীসহ আশপাশের জেলায় এ ভূকম্পন বেশি অনুভূত হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে দেশের কোথাও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

রাজধানীতে অফিস ছুটির প্রায় দুই ঘণ্টা আগে এই ভূকম্পনে ভবনগুলো কেঁপে ওঠে। এতে আতঙ্কে অনেকেই ভবন থেকে রাস্তায় নেমে আসেন।

এর আগে গত বছরের জানুয়ারিতে ভারতের মণিপুর রাজ্যের রাজধানী ইম্ফল থেকে ৩৩ কিলোমিটার পূর্ব-উত্তর-পূর্বে এবং ২০১৫ সালের এপ্রিল থেকে মে মাসে নেপালে বেশ কয়েকটি বড় মাত্রার ভূমিকম্প হয়। এতে আট হাজারের বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। আর এ ভূকম্পনে কেঁপে ওঠে বাংলাদেশও।

এতে বাংলাদেশে কোনো প্রাণহানির ঘটনা না ঘটলেও দেশের বিভিন্ন স্থানে বহুতল ও পুরাতন ভবনে ফাটল দেখা দেয়; আতঙ্কে মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে রাস্তায় বের হয়ে আসে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশও বেশ বড় মাত্রার ভূমিকম্প ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

প্রসঙ্গত, রিখটার স্কেলে ৪ থেকে ৪ দশমিক ৯ মাত্রার কম্পনকে মৃদু ভূম্পিকম্প হিসেবে ধরা হয়। আর ৫ থেকে ৫ দশমিক ৯ মাত্রাকে ‘মাঝারি’, ৬ থেকে ৬ দশমিক ৯ মাত্রা হলে ‘শক্তিশালী’, ৭ থেকে ৭ দশমিক ৯ মাত্রাহলে ‘ভয়াবহ’ এবং  ৮ বা এর বেশি মাত্রায় ভূমিকম্প হলে এক ‘অত্যন্ত ভয়াবহ’ ভূমিকম্প হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

 

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category