,

ঘাতকের বুলেট এফোঁড়-ওফোঁড় করেছে সাংসদের বুক

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সরকারদলীয় সাংসদ মনজুরুল ইসলাম লিটনের বুকের ডান দিক দিয়ে একটি গুলি ঢুকে বেরিয়ে গেছে। শরীরের ভেতরে থেকে যাওয়া আরেকটি গুলি বের করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে রংপুর মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান নারায়ণ চন্দ্র সাহা সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।

সাংসদ মনজুরুলের মরদেহের ময়নাতদন্ত আজ রোববার সকাল সোয়া ১০টার দিকে রংপুর মেডিকেল কলেজের মর্গে সম্পন্ন হয়। এরপর নারায়ণ চন্দ্র সাহা সাংবাদিকদের বলেন, ‘সাংসদের বুকের ডান দিকে একটি গুলি বিদ্ধ হয়ে তা বেরিয়ে যায়। আরেকটি গুলি শরীরের ভেতরে আটকা পড়ে। এটি বের করা হয়েছে। এ ছাড়া তাঁর বাঁ হাতেও তিনটি গুলি লাগে।’

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন শিগগিরই দেওয়া হবে বলে জানান নারায়ণ চন্দ্র সাহা।

গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় সাংসদের গ্রামের বাড়ি সুন্দরগঞ্জের সাহাবাজ গ্রামের ড্রয়িংরুমে (বসার কক্ষে) ঢুকে তাঁকে গুলি করে মোটরসাইকেলযোগে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

রংপুরে জানাজা, লাশ ঢাকায়

আজ রোববার রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিমঘর থেকে সাংসদ মনজুরুলের মরদেহ দুপুর ১২টায় রংপুর পুলিশ লাইনস মাঠে নেওয়া হয়। সেখানে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে মরদেহ হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় নেওয়া হয়। ওই জানাজায় অংশ নেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করীম, রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ, পুলিশের রংপুর রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) খন্দকার গোলাম ফারুক, জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

আজ বিকেলে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আজ বিকেলে হেলিকপ্টারে করে সাংসদের মনজুরুল ইসলামের মরদেহ ঢাকায় আনা হয়। মরদেহ বারডেমের হিমঘরে রাখা হয়েছে। কাল সোমবার সকাল ১০টায় জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় তাঁর দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ মন্ত্রিপরিষদ এবং সরকারের বিভিন্ন বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানাবেন। সেখান থেকে লাশ হেলিকপ্টারে করে তাঁর গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে তৃতীয় জানাজা শেষ পারিবারিক কবরস্থানে মনজুরুল ইসলামের মরদেহ তাঁর বাবা-মার কবরের পাশে দাফন করা হবে।

সুন্দরগঞ্জে হরতাল

সাংসদকে হত্যার প্রতিবাদে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় আজ সকাল থেকে হরতাল চলে। বামনডাঙ্গা স্টেশনে সান্তাহারগামী একটি ট্রেন সকাল সাড়ে আটটা থেকে আটকে রাখে সাংসদের সমর্থকেরা। সান্তাহার-লালমনিরহাট রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। হরতালে সুন্দরগঞ্জের বেশির ভাগ দোকানপাট বন্ধ থাকে। বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। সাংসদের হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার না করা পর্যন্ত হরতাল চলবে বলে জানিয়েছেন বামনডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক নাদিম হোসেন।

সাংসদ হত্যায় মামলা হয়নি

গাইবান্ধার পুলিশ সুপার মো. আশরাফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সন্দেহভাজন ১০ জনকে আটক করা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে তিনি তাঁদের নাম বলেননি।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ এ ঘটনায় জামায়াত অথবা উগ্রপন্থীদের সন্দেহ করছে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category