,

শিশুসহ দুই নারীর আত্মসমর্পণ

প্রনব কুমার পাল, ঢাকাঃ রাজধানীর দক্ষিণখানের জঙ্গি আস্তানা ঘেরাওয়ের পর দুই শিশুসহ দুই নারী আত্মসমর্পণ করেছেন।

শনিবার খুব ভোরে পূর্ব আশকোনার সূর্যভিলা নামে তিন তলা ওই ভবন ঘিরে ফেলে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট অভিযান শুরু করে। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে দুই শিশুসহ দুই নারী বেরিয়ে আসেন।

কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কর্মকর্তা অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. ছানোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

যারা আত্মসমর্পণ করেছেন তারা হলেন-  পুলিশের অভিযানে নিহত জঙ্গি প্রাক্তন মেজর জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুন্নাহার শীলা ও তার মেয়ে, পলাতক মুসার স্ত্রী তৃষ্ণা ও তার ছেলে। গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে মিরপুরের রূপনগরের একটি বাসায় পুলিশের অভিযানে প্রাক্তন সেনা কর্মকর্তা জাহিদুল নিহত হন।

ভবনের ভেতরে অবস্থান করছে জেএমবির অর্থদাতা নিহত তানভীর কাদেরির ছেলে আবিরসহ একজন পুরুষ ও একজন নারী। তাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানানো হলেও তারা পাল্টা হুমকি দিচ্ছেন। তারা বলছেন- তাদের শরীরে গ্রেনেড বাঁধা আছে। যদি ধরার চেষ্টা করা তাহলে তারা বিস্ফোরণ ঘটাবে।

ঘটনাস্থল থেকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, আমাদের লক্ষ্য তাদের সঙ্গে কথা বলে আত্মসমর্পণ করানো। ওই ভবনের ভেতর সাতজন অবস্থান করছিল। সেখান থেকে চারজন বেরিয়ে এসেছে। ভেতরে অবস্থান করছে জেএমবির অর্থদাতা নিহত তানভীর কাদেরির ছেলে আবিরসহ একজন পুরুষ ও একজন নারী। তাদেরও আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে। তবে তারা প্রতিরোধ করার কথা বলছে।

এর আগে ভোররাত থেকে দক্ষিণখানের সূর্য ভিলা নামের তিনতলা ভবন ঘিরে রাখে পুলিশ। ভবনের অন্য ফ্ল্যাটের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশের বিশেষ বাহিনী সোয়াত যোগ দিয়েছে। রাখা হয়েছে ফায়ার সার্ভিসের একাধিক গাড়ি ও  অ্যাম্বুলেন্স।

ঘটনাস্থল থেকে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, বাড়িটিতে নব্য জেএমবির এক শীর্ষ নেতা রয়েছেন। এ ছাড়া নারীসহ একাধিক জঙ্গি রয়েছে। তাদের কাছে শক্তিশালী গ্রেনেড রয়েছে। তাদের আত্মসমর্পণ করতে বলা হচ্ছে। তবে তারা শরীরে গ্রেনেড বেঁধে প্রতিরোধের ঘোষণা দিচ্ছে।

তিনি আরো জানান, অভিযান চলছে। অভিযান শেষ হলে এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

 

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category