,

কুষ্টিয়ায় এসিল্যান্ডের ডিজিটাল পদ্ধতিতে…

এস.এম জামাল: কুষ্টিয়া সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হাফিজ আল আসাদ যোগদানের পর থেকেই উপজেলা ভূমি অফিসের আমুল পরিবর্তন শুরু হয়েছে। এ অফিসটি একটি ডিজিটাল অফিসে রূপান্তর হয়েছে। সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হাফিজ আল আসাদ তার মেধা মননে ও সৃজনশীলতার মধ্য দিয়ে স্বচ্ছ এবং ডিজিটাল পদ্ধতিতে সেবাপ্রত্যাশীদের সেবাসহ যা যা প্রয়োজন তার সবই হচ্ছে এই অফিসে। তিনি বলেন, আমরা নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে এই ভুমি অফিসের নামজারির অটোমেশন সিস্টেম চালু  করেছি। যার মাধ্যমে আবেদন দাখিলের দিনই আবেদনকারীর মোবাইল ফোন নম্বরে শুনানীর তারিখের এসএমএস চলে যাবে। এছাড়াও এই অফিসে স্থাপন করা হয়েছে অভিযোগ, মতামত ও পরামর্শ বাক্স। এছাড়াও কাচারী ঘর, সুসজ্জিত ফুলের বাগানসহ উপজেলা ভূমি অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা, কর্মচারীদের ছবিসহ মোবাইল ফোন নম্বর সম্বলিত বোর্ডে তালিকা করা আছে। ভুমি অফিস সুত্রে জানা গেছে, ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরে এই ভূমি অফিসের নামজারি করা খারিজ খতিয়ান বহি কুষ্টিয়া জেলা রেকর্ডরুমে প্রেরণ করা হয়েছে এবং কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ভূমি অফিসের রেকর্ডরুমে সংরক্ষণ করা হয়েছে।
সপ্তাহে বুধবার কাছারি ঘরে সেবাপ্রত্যাশীদের জন্য চেয়ার টেবিলসহ সুন্দর বসার ব্যবস্থা, এবং সেখানে প্রতি বুধবারে গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়। এখানে আলাদা একটি কক্ষে রয়েছে তথ্য কেন্দ্র কাম হেল্প ডেস্ক। যেখানে জনগন যেন সহজেই তাদের প্রয়োজনীয় সমস্যা সমাধানের পথ সুগম হয়। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ভূমি অফিসে মিস কেস নিষ্পত্তি সহজীকরন এর জন্য আবেদন দাখিলের দিনই আবেদনকারীকে কেস নম্বর সম্বলিত সিøপ প্রদান ও কেস নথি সৃজনপূর্বক ইউএলএও এর নিকট প্রতিবেদনের জন্য প্রেরণ। এছাড়াও সদর উপজেলা ভূমি অফিসের সালওয়ারি সজ্জিত কেস নথিও সংযুক্ত করা হয়েছে।
এদিকে নামজারিতে কোনও দালাল শ্রেণির কিংবা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের লোকজন যেন বেশি টাকা নিতে বা চাইতে না পারেন সেজন্যে ইতোমধ্যে সকল ভূমি অফিসে সিটিজেন চার্টার এবং জনসচেতনতামূলক ফেস্টুন টানিয়ে দেওয়া হয়েছে। আবার ভূমি অফিসের কেউ অতিরিক্ত টাকা নিলে তার বিষয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও প্রতিটি ভুমি অফিসে সাইনবোর্ডসহ প্রতিটি কর্মকর্তাদের পরিচিত (আইডি) কার্ড সংযুক্ত করা হয়েছে। কর্মকর্তাদের সকল কক্ষ সজ্জিতকরণ ও ইন্টারকম এবং অফিসে ওয়াইফাইজোনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। সম্প্রতি কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ভুমি অফিসের নতুন কক্ষের উদ্বোধন করেছেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান। এছাড়াও তিনি সম্প্রতি নির্মিত কাছারি ঘর, তথ্য কেন্দ্র কাম হেল্প ডেস্ক, রেকর্ডরুমসহ সহকারী কমিশনার (ভুমি)র হাফিজ আল আসাদের ২২টি নতুন উদ্ভাবনের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এসব পরিদর্শন শেষে জেলা প্রশাসক জানান, বর্তমানে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি মামলা মোকদ্দমা ভূমি সংক্রান্ত, আর এ মামলাগুলো নিষ্পত্তি করতে মানুষ বছরের পর বছর আদালতের দারস্থ হচ্ছে। এর মুল কারণ হচ্ছে ভূমি সংক্রান্ত বিষয়ে অধিকাংশ মানুষের অজ্ঞতা ও অনীহা। আর এই দীর্ঘদিনের অজ্ঞতার কবল থেকে সদর উপজেলার সাধারণ মানুষ উঠে আসতে শুরু করেছে।
পরে তিনি অফিস চত্বরে একটি বকুল গাছের চারা রোপন করেন। জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবু হেনা মুস্তাফা কামাল বলেন, ভুমি অফিসে বর্তমান একাল আর সেকালের মতো অবস্থা বিরাজ করছে। যার ফলে ক্রান্তিকাল সময় পার করছে ভুমি অফিসের কর্মকর্তারা। জমি সংক্রান্ত কোন তথ্য জানতে পারতো জনগন। কেবলমাত্র যারা সরাসরি চাষাবাদ করতো তারা ব্যাতিত। আস্তে আস্তে সেসব পরিবর্তন হচ্ছে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category