,

কুষ্টিয়ায় বিজয় দিবস উপলক্ষে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট

এস.এম জামাল: কুষ্টিয়ায় গুরুকুল শিক্ষা পরিবারের আন্ত:টেকনোলজি বিজয় দিবস ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।মঙ্গলবার বিকালে কুষ্টিয়া সরকারী কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো: ইবাদত হোসেন। অনুষ্ঠানে তিনি শিক্ষার্থীদের কাছে খেলাধুলার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে বলেন, যদি কেউ সুস্থ দেহ ও সবল মন চায় তাহলে খেলাধুলার কোন বিকল্প নেই। খেলাধুলাই একমাত্র সঠিক ব্যক্তিত্ব বিকাশ ও সুস্থ শরীর গঠনে কার্যকরী ভুমিকা পালন করে। সেইসাথে মানসিক চাপ কমায়, স্বাস্থ্য ভাল রাখে এবং পড়ালেখায় মনোযোগী করে তুলে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার খেলাধুলার প্রতি অধিক গুরুত্ব দিয়েছেন। মহান বিজয়ের মাসে গুরুকুল আয়োজিত এ ধরনের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট বেশি বেশি করে আয়োজনের আহবান জানান। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেক্ট্রনিক বিভাগের চীফ ইঞ্জিনিয়ারিং এ.কে.এম শরীফ উদ্দিন, সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক নিশান আলী, গুরুকুল শিক্ষা পরিবারের লিগ্যাল এন্ড এডমিন শামীম রানা, গুরুকুল বিজয় দিবস আন্তঃটেকনোলজি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটির আহবায়ক, সিভিল টেকনোলজির বিভাগীয় প্রধান সৈকত হোসেন, যুগ্ম-আহবায়ক আর এস ট্রেড প্রধান আব্দুল্লাহ আল মাসুম, সিভিল টেকনোলজির শিক্ষক ইমরান মাহমুদ, আরএস ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক শর্মিলা আক্তার ও শামীমা পারভিন, আরএস কেমিস্ট্রি শিক্ষক কায়েস উদ্দিন, প্যাথলজি বিভাগের শিক্ষক মিশকাতুর রহমান ও টেক্সটাইল বিভাগের শিক্ষক সালাউদ্দিন আহমেদ। কুষ্টিয়া গুরুকুল এর ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৮টি টেকনোলজির শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহন করেন। এবং গুরুকুল ইঞ্জিনিয়ারিং সেকশন ও মেডিকেল সেকশনের মেয়ে শিক্ষার্থীদের দুটি দলের সমন্বিত প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্টের খেলা উপভোগ করেন অতিথিবৃন্দ। পরে অতিথিবৃন্দ চ্যাম্পিয়ন টিমের অধিনায়কের হাতে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি ও রানার্স আপ টিমের অধিনায়কের হাতে রানার্স আপ ট্রফি এবং খেলায় অংশগ্রহণকারী সকল খেলোয়াড়ের হাতে সম্মানসূচক ক্রেস্ট ও ম্যাডেল তুলে দেন। গুরুকুল শিক্ষা পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা ও কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সুফি ফারুক ইবনে আবুবকরের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৮টি টেকনোলজির শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনে পড়ালেখার পাশাপাশি নিয়মিত খেলাধুলার আয়োজন করে আসছে। যার ফলে শিক্ষার্থীরা খেলাধুলার বিভিন্ন প্রতিযোগীতা অংশগ্রহণ করে পুরস্কার লাভ করছে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category