,

তালবাড়ীয়া বিলে মাছ ধরা নিষিদ্ধ

দৌলতপুর প্রতিনিধিঃ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে অবৈধভাবে জলমহাল ইজারা দেয়ার ঘটনায় তালবাড়ীয়া বিলে ছয় মাসের জন্য মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে আদালত।
বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের এ্যাডভোকেট এ.কে.এম সরোয়ার জাহান বাদশা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  তবে আদালতের এ নিষেধাজ্ঞা মানতে নারাজ শাপলা মৎস্যজীবি সমিতি। তারা বিভিন্ন সময়ে জোর পূর্বক মাছ ধরার জন্য উঠে পড়ে লেখেছে। এই নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে।
একটি অপেশাদার নাম সর্বস্ব মৎস্য সংগঠনকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ইজারা দেয়ায় ক্ষুব্ধ মৎস্যজীবি সংগঠন দৌলতপুর উপজেলার তালবাড়িয়ার মৎস্যজীবিরা।
সর্বোচ্চ দরদাতা সংগঠন তালবাড়িয়া মৎস্যজীবি সমবায় লিঃ এর সভাপতি চান্দু বিশ^াস জানান, কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার ৭৩.২৩ একর আয়তন বিশিষ্ট তালবাড়িয়া দহ জলমহালটি ১৪২৩-১৪২৫ বাংলা সনের ৩ বছর মেয়াদে ইজারা প্রদানের বিজ্ঞপ্তি অন্তে নির্দেশিত শর্তানুযায়ী আহ্বানকৃত দরদাতা হিসেবে বাৎসরিক ৮লক্ষ ৫০হাজার টাকা দরপত্র দাখিল করি যেখানে আমাদের প্রতিপক্ষ নাম সর্বস্ব সংগঠন শাপলা মৎস্যজীবি সমিতি’র পক্ষ থেকে দাখিলকৃত দর ছিলো ৫লক্ষ ৫৩হাজার ৯শত ৫০টাকা মাত্র। কিন্তু ইজারা প্রদান কমিটি আমাদের অনুকুলে ইজারা না দিয়ে মোটা অংকের টাকা লেন-দেনের মাধ্যমে লোয়েষ্ট দরদাতা শাপলা মৎসজীবি সমিতির অনুকূলে অনুমোদন দেন।
প্রতিপক্ষ সংগঠন শাপলা মৎসজীবি সমিতির সভাপতি আব্দুল আলীম জানান, তালবাড়িয়া মৎস্যজীবি সমবায় সমিতিই সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে ৮লক্ষ ৫০হাজার টাকা দরপত্র দিয়েছিলো যেখানে শাপলা মৎস্যজীবি সমিতি ৫লক্ষ ৫৩ হাজার ৯শত ৫০টাকা দাখিল করেছিলাম। পরে প্রশাসন আমাদের ডেকে প্রতিপক্ষের দাখিলকৃত দর ধার্য্য করে আমাদের অনুকুলে বরাদ্ধ দেন।
পরে তালবাড়ীয়া মৎস্যজীবি সমিতি আদালতের দারস্ত হলে আদালত বিলে ছয় মাস মাছ ধরা নিষিদ্ধ করে।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category