,

কুষ্টিয়ায় শুরু হচ্ছে লালন স্মরণোৎসব

স্টাফ রিপোর্টার : বাউল সম্রাট ফকির লালন সাঁইয়ের ১২৬তম তিরোধান উপলক্ষে কুষ্টিয়ার ছেঁউড়িয়ার লালন আখড়া বাড়িতে রোববার (১৬ অক্টোবর) থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী লালন স্মরণোৎসব।

উৎসবকে ঘিরে ছেঁউড়িয়ার লালন আখড়া বাড়ি এখন সাজ সাজ রব। সাধু, লালন ভক্ত ও সাঁইজির অনুসারীদের পদভারে পূর্ণ হয়ে উঠেছে লালন আখড়া। বসেছে সাধুদের হাট।

kushtia-lalon-pic-2বাংলা ১২৯৭ সালের ১ কার্তিক বাউল সাধক লালন সাঁই দেহত্যাগ করেন। এরপর থেকে তার ভক্ত ও অনুসারীরা এ দিনটি পালন করে আসছেন বছরের পর বছর ধরে। তিন দিনের এ উৎসবে যোগ দিতে এরই মধ্যে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে এসেছেন সাধু-গুরু, বাউল ও তার ভক্তরা।

উৎসবে যোগ দেওয়ার জন্য লালন ভক্ত ও সাধুদের আনুষ্ঠানিকভাবে আমন্ত্রণ জানানো হয় না। তারপরও আত্মার টানে তারা ছুটে আসেন। এখানে কেউ এসেছেন আত্মাকে শুদ্ধ করতে, আবার কেউ আসেন সাঁইজির মাধ্যমে শ্রষ্টার সান্নিধ্য পেতে।

লালন একাডেমি ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এবং সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় তিন দিনব্যাপী এ লালন স্মরণোৎসব আনুষ্ঠানিকভাবে রোববার সন্ধ্যায় উদ্বোধন করবেন- সাংস্কৃতিক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি।

kushtia-lalon-pic-3

লালন একাডেমির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সেলিম হক  জানান, সাঁইজি ছিলেন আধ্যাত্মিক চেতনার মানুষ। তিনি মানুষের কল্যাণের জন্য নিজের সুরে গান গেয়েছিলেন। বর্তমানে বিভিন্নভাবে মিউজিক দিয়েও সাঁইজির গান গাওয়া হচ্ছে। তাই আমরা সাঁইজির প্রকৃত সুর ধরে রাখার চেষ্টা করছি। আগামী তিনদিন ধরে সাঁইজির গানের আধ্যাত্মিকতা তুলে ধরা হবে তার সুরেই।
তিনি আরো জানান, রোববার থেকে তিন দিনব্যাপী সাঁইজির ১২৬তম তিরোধান দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, সংগীতানুষ্ঠান ও মেলার আয়োজন করা হয়েছে।
প্রতি বছর সাঁইজির তিরোধান দিবসে তার লাখো ভক্তদের আগমন হয় এ আখড়া বাড়িতে। এবারো তার ব্যতিক্রম হবে না আশা করছি।

কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম  জানান, লালন স্মরণোৎসবকে ঘিরে মাজার এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সে সঙ্গে লালন মাজারে আসার প্রত্যেকটি রাস্তায় পুলিশের টহল টিম থাকবে।

যেকোনো ধরনের অপৃত্তিকর ঘটনা এড়াতে মাজার এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হবে বলেও জানান তিনি।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category