,

জাতি-ধর্ম ভেদাভেদ ভুলে শারদীয় দুর্গোৎসব পালিত হয়েছে: কামারুল আরেফিন

স্টাফ রিপোর্টার: কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার সেরা দুর্গাপূজার পুরষ্কার বিতরনী ও বিজয়া পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত হয়েছে।  বৃহস্পতিবার দুপুরে মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে মিরপুর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক বিশ্বজিৎ বিশ্বাসের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন। এসময় তিনি বলেন- সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে এবছর মিরপুর উপজেলার ১৮টি পূজা মন্দিরে দূর্গাপূজা পালিত হয়েছে। কোথায় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। আপনাদের সকলের সহযোগিতা ও আন্তরিকতায় এ শান্তিপূর্নভাবে পূজা উদযাপিত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মিরপুরের মানুষ জাতি, ধর্ম  ভেদাভেদ ভুলে শারদীয় দুর্গোৎসব পালন করেছে। এতে আরেকবার প্রমানিত হয়েছে যে মিরপুরে সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদের কোন ঠাঁই নাই।

বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী নৈমুল ইসলাম, আমলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান খাঁন, দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সম্পাদক ও চ্যানেল আই প্রতিনিধি আনিসুজ্জামান ডাবলু, চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের স্টাফ রিপোর্টার শরীফ বিশ্বাস, পিপাসার পরিচালক শ্যামল কুমার চৌধুরী, মিরপুর প্রেসকাবের সভাপতি মহাম্মদ আলী জোয়ার্দ্দার। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন অগ্রনী ব্যাংক মিরপুর উপজেলা শাখার ব্যবস্থাপক শক্তি সঞ্চয় পাল, উপজেলা পূজা উদযাপন সিনিয়র সহ-সভাপতি নির্মল কুমার বিশ্বাস, পোড়াদহ সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি স্বপন কুমার চক্রবর্তী, সাধারন সম্পাদক অন্নদা প্রসাদ মোহন্ত, সদরপুর সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি কাঞ্চন কুমার, চিথলিয়া সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি পবিত্র কুমার দত্ত, সাধারন সম্পাদক চন্ডী প্রসাদ নাথ, গোবিন্দপুর সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সাংগাঠনিক সম্পাদক কার্ত্তিক চন্দ্র মালাকার, ফুলবাড়ীয়া সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি দিলীপ কুমার দাস, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হরেন্দ্র নাথ ঘোষ, পোড়াদহ চিথলিয়া সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সাধারন সম্পাদক উত্তম কুমার বিশ্বাস, মিরপুর বাজার পাড়া সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি অরুন কুমার পাল, সাধারন সম্পাদক কাজল কুমার কুন্ডু, মিরপুর রেলপাড়া সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি হারান বেধ, পশ্চিম সরদার পাড়া সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি বিপুল কুমার, সুকুমার রায়, নিমাই রায়, রতন কুমার, অসিত কুমার প্রমুখ। আলোচনা শেষে উপজেলার ১৮টি পূজা মন্দিরের সার্বিক দিক বিবেচনা করে প্রথম স্থান অধিকারী পোড়াদহ সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরকে দশ হাজার টাকা, দ্বিতীয় স্থান অধিকারী সদরপুর সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরকে পাঁচ হাজার টাকা ও তৃতীয় স্থান অধিকারী রেলপাড়া সার্ব্বজনীন পূজা মন্দিরকে তিন হাজার টাকা প্রাইজমানী প্রদান করা হয়। এসময় উপজেলা ১৮টি পূজা মন্দিরের সভাপতি/সম্পাদকসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category