,

সরকারী গাছ কেটে ঘর!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুষ্টিয়ায় সরকারী গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে বিদ্যুৎ বিভাগের সিবিএ নেতাদের বিরুদ্ধে।
সরকারী নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে প্রকাশ্যে পশ্চিমাঞ্চলীয় বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানী ওজোপাডিকো’র কুষ্টিয়া কম্পাউন্ডের সরকারী গাছ কাটার অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে।
গাছ কাটার বিষয়ে এখানকার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কোন অনুমোদন না থাকলেও বিদ্যুৎ শ্রমিক কর্মচারী লীগ নেতাদের দাপটেই চলছে এ গাছ কাটার উৎসব।
সরেজমিনে গাছকাটার চিত্র দৃশ্যমান হলেও তত্বাবধায়ক প্রকৌশলীর দাবী, কোন গাছ কাটা হয়নি।
তবে গাছ কাটা শ্রমিক খালেক জানান, এখানকার নেতারা আমাদের ডেকে এনেছে গাছ কাটতে। গাছ কাটার বিষয়ে অফিসের আদেশ আছে কি না তা আমরা জানি না। আপনাদের যা জানার প্রয়োজন আপনারা এখানকার সিবিএ ও বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজদ ও সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলামকে জিজ্ঞাসা করুন।
তিনি আরো জানান, ইতোমধ্যে ছোট বড়সহ ১০টি গাছ কেটেছেন আরও বেশ কিছু গাছ কাটার জন্য চিহ্নিত করে দেখিয়ে দেয়া হয়েছে। এসব কাঠ কি হবে বা কোথায় যাবে তা কিছুই আমরা জানি না।
সিবিএ ও বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ জানান, এসব গাছ কাটতে অফিসিয়াল কোন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়নি। ছোট খাটো এসব গাছ কাঁটতে আবার অনুমতি নেওয়ার কি আছে?
তিনি আরো জানান, ছোট খাটো বিষয়ে এতো পদ্ধতি অনুসরন করতে গেলে কখনো ভালো কিছু করা যায় না। এই গাছ কেটে একটি ঘর নির্মাণ করা হবে। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।
ওজোপাডিকো কুষ্টিয়ার বিদ্যুৎ শ্রমিক কর্মচারী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক জানান, এই কম্পাউন্ডের পরিবেশ সুন্দর রাখার জন্য তারা অপ্রয়োজনীয় গাছপালা এবং ঝোপঝাড় কেটে পরিষ্কার করা হচ্ছে।


তবে গত কয়েকদিন ধরে শ্রমিকরা ওজোপাডিকো কুষ্টিয়া কম্পাউন্ডে গাছ কাটলেও বিষয়টি জানেন না উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ।
ওজোপাডিকো লি: কুষ্টিয়ার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী তবিবুর রহমান জানান, আমাদের কম্পাউন্ডে কোন গাছ কাটা হচ্ছে না। আর গাছ কাটা হলে তা আমি জানতাম। ঝোপঝাড় পরিষ্কার করা হতে পারে। গাছ কেটে ঘর নির্মানের বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।
কুষ্টিয়া বিভাগীয় বনকর্মকর্তা আসলাম মজুমদার জানান, সরকারী বনজ সম্পদ পরিবহন নিয়ন্ত্রন আইন-২০১১ বিধিমতে গাছ কাটতে হলে সংশ্লিষ্ট দপ্তর কর্তৃপক্ষ দরপত্র আহ্বান করা উচিত। এছাড়া সরকারী গাছ কাটার অন্যকোন পথ নেই।
কুষ্টিয়া বিদ্যুৎ অফিসের ভিতরে যেসব গাছ কাটা হয়েছে এবং হচ্ছে সেবিষয়ে ঐ অফিসের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ আইনানুগ ব্যবস্থা নিবেন। সেখানে বন বিভাগের কিছু করার নেই।

Facebooktwitterlinkedinyoutube
Facebooktwitterredditpinterestlinkedin


     More News Of This Category